কেন ব্যবসায় উদ্যোক্তা হবেন?

কেন ব্যবসায় উদ্যোক্তা হবেন?

প্রতিটা মানুষেরই জীবনে একটা পর্যায়ে এসে মনে হয় “যদি আমি নিজের মতো কিছু করতে পারতাম, মনের কাছে শান্তি পেতাম!” আবার অনেকেই ভাবি, “আমি কি তাই পারবো একজন উদ্যোক্তা হতে?” এই ধরণের অনেক ইচ্ছা আমাদের মাঝে কাজ করে আর চারপাশের মানুষের নানামুখী মন্তব্য ও পরামর্শ উদ্যোক্তা হওয়ার ইচ্ছা ও স্বপ্ন কে আরো বেশি ঘোলাটে করে ফেলে! আসুন নিরপেক্ষভাবে ও বাস্তবতার নিরিখে কিছু আলোচনা করি যে কেন আপনি উদ্যোক্তা হবেন।

১. সৃজনশীলতার বিকাশের জন্য 

আমাদের মাঝে অনেকেই আছি আমরা যারা চিন্তা ভাবনায় অন্যদের থেকে আলাদা। কাজ করতে হয় দেখে করি কিন্তু মাথায় সারাক্ষন বিভিন্ন আইডিয়া ঘুরতে থাকে। কিছু মানুষ থাকে চিরাচরিত কাজ গুলো মন দিয়ে করে যেতে পছন্দ করে আবার কিছু মানুষ থাকে যারা সবসময় কিছু ভিন্ন চিন্তা করে এবং তাদের চিন্তা গুলো সৃজনশীল কিছু উপহার দেয়। সাধারণ দশজনের মতো না ভেবে যদি ভিন্ন চিন্তা আপনাকে তাড়া করে, এবং ভিন্ন চিন্তা দিয়ে আপনি একটা নতুন পণ্য বা সেবার মাধ্যমে একটি ব্যবসায় দাড় করানোর প্রস্তুতি নিতে পারেন, আপনার অবশ্যই হওয়া উচিত একজন উদ্যোক্তা। 

২. স্বাধীনভাবে কাজ করার জন্য 

আমরা অনেকে আছি কোনো পেশায় কাজ ভালো করতে পারলেও মন থেকে একটা বন্দিদশা অনুভূত হয়। মনে হয় যে আমার স্বপ্ন গুলো পূরণ হচ্ছেনা। চাকরি পাওয়ার প্রথম দিন গুলো খুব ভালো যায় কিন্তু তারপর শুরু হয় একঘেয়েমি আর পরাধীনতার অনুভূতি। চাকরির বেশ কিছু নিয়ম কানুন থাকে যা অনেক সময় মানতে ইচ্ছা করে না আবার অনেক সময় মনে হয় সঠিক পথে যাচ্ছেনা সব কিছু, পরামর্শ দিলেও সেটা কেউ গ্রাহ্য করেনা আবার ভালো ব্যবহার ও পাওয়া যায়না উর্ধতন কর্মকর্তা থেকে। দীর্ঘদিন এভাবে কাজ করে একসময় মনে হয় স্বাধীনভাবে কাজ করা দরকার নিজের যোগ্যতা প্রমানের জন্য। এই সময়ে আপনি চারপাশের পরিবেশ আর নতুন উদ্যোক্তাদের সফলতা ব্যর্থতা নিয়ে গবেষণার মাধ্যমে নিজেই হতে পারেন একজন ব্যবসায় উদ্যোক্তা।  

৩. চাহিদা-যোগানের ঘাটতি পূরণের জন্য 

আপনি একজন উদ্যোক্তা বা ব্যবসায় উদ্যোক্তা হতে পারেন যদি আপনি সমসাময়িক পরিস্থিতিতে একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক ক্রেতার সন্ধান পেয়ে যান বা জানতে পারেন যাদের কোনো পণ্যের চাহিদা আছে এবং তারা সেটা নিয়মিত ক্রয় করতেও প্রস্তুত যদি বাজারে সেরকম কিছু থাকে।  সাধারণত যেকোনো সমস্যা থেকেই শুরু হয় উদ্যোক্তা হওয়ার প্রথম চিন্তা।  চিন্তা করে দেখুন – রাস্তায় ট্রাফিক জ্যাম এ আমাদের সময় যেন নষ্ট না হয় সেজন্যেই পকেট ডিকশনারী আবিষ্কৃত হয়! সেই ধারা কে অনুসরণ করে কত পণ্যের আবির্ভাব এখন বাজার জুড়ে। উদ্যোক্তা হওয়ার পূর্বশর্তই হচ্ছে আপনার তৈরী করা পণ্যে ক্রেতার আগ্রহ থাকা, তাদের কাছে আপনার পণ্যটি প্রয়োজনীয় মনে হওয়া।  

৪. নেতৃত্বের বিকাশের জন্য 

আমরা অনেকেই থাকি, অন্যের নেতৃত্ব নিয়ে বেশিদিন ভালোভাবে চলতে পারিনা।  নিজের একটা নেতৃত্ব দেয়ার খুব ইচ্ছা জাগে।  এই ইচ্ছা জাগে কারণ আমি জানি আমি ভালোভাবে মানুষ বুঝতে পারি, মানুষের ভেতরের গুন্ ও সম্ভাবনা বুঝতে পারি।  আর একমাত্র নিজে উদ্যোক্তা হয়েই আমি নিজের মতো করে মানুষ পরিচালনা করে ভালো কিছু করতে পারি – এই খেয়াল যদি আপনার মাঝে কখনো আসে, অবস্যই আপনার একজন উদ্যোক্তা হওয়া উচিত।  ভালো উদ্যোক্তার অনেক বড় একটি গুন্ হলো মানুষকে নির্দিষ্ট লক্ষে দক্ষভাবে পরিচালনা করা।  

৫. আনন্দ নিয়ে বাঁচার জন্য 

আমরা অনেকেই এমন সব কাজ করে জীবন ধারণ করি যেখানে দিন শেষে হয়তো পরিবারের ভরণ পোষণ করতে পারি কিন্তু নিজের মনের স্বপ্ন পূরণ করতে পারিনা।  বছরের পর বছর কেটে যায় মানসিক চাপ আর এক ধরণের সুক্ষ হতাশার খোঁচায়।  অনেকের ইচ্ছা থাকে যে লেখাপড়া শেষ করে একটা ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলবো কিন্তু পারিপার্শ্বিকতা, পরিবার থেকে সমর্থন না পাওয়া আর সব মিলিয়ে দ্বিধায় ওআর ব্যবসায় করা হয়ে ওঠেনা যেখানে আমি জানি আমার ভেতরে আদর্শ ব্যবসায়ীর সব গুন্ আছে। এরকম অবস্থায় চাকরিতে কিছুদিন পর সেই মনের ইচ্ছাটা আবার ও জেগে ওঠে, আর এই অবস্থাই বলে দেয়  কেন উদ্যোক্তা হবেন। 

জীবনে নিজের স্বপ্ন পূরণ করে আনন্দ নিয়ে বাঁচতে চাইলে তার জন্যে ঝুঁকি নিয়ে সৃজনশীল কিছু তৈরী করে আগ্রহী ক্রেতা তৈরী ও ধরে রাখতে পারলেই আপনার উদ্যোক্তা হওয়া উচিত। তবে সবারই যে উদ্যোক্তা হতে হবে তা কিন্তু নয় বা সবার যে একই সময়ে উদ্যোক্তা হতে হবে তাও নয়।  যখন ই আপনার মনে হবে, আমার ভেতরে আছে কিছু সহজাত বুদ্ধি যা দিয়ে সমাজের মানুষের কোনো চাহিদা পূরণ করা যায় আর যেটা তারা অর্থের বিনিময়ে কিনতে রাজি থাকবে, আপনার অবশ্যই একজন ব্যবসায় উদ্যোক্তা হওয়া উচিত।  

Author: Abu Md. Abdullah

Reach: abdullah.du@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares